শিরোনাম

বগুড়ায় আখের আলী হত্যার রহস্য উন্মোচন : গ্রেফতার ১


নন্দীগ্রাম (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার নন্দীগ্রামে গত ২২ আগষ্ট নাটোর-বগুড়া মহাসড়কের পাশে বগুড়া সদরের সাবগ্রামের চান্দপাড়া’র একাধিক মামলার আসামি আখের আলী (৩৮) এর লাশ নন্দীগ্রাম থানা পুলিশ ধান ক্ষেতের মধ্য থেকে গলাকাটা অবস্থায় উদ্ধার করে। পাশের বাগান থেকে একটি মোটর সাইকেল ও একটি সচল মোবাইল পাওয়া যায়। মোবাইল ফোনের সূত্র ধরে তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে নন্দীগ্রাম থানা পুলিশ জানতে পারে মৃত ব্যক্তিটির নাম আখের আলী। বৃহস্পতিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টায় প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে নন্দীগ্রাম থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) আনোয়ার হোসেন জানান, এলাকা সূত্রে জানা যায় বিগত প্রায় ২ মাস ধরে কালা মানিক ওরফে বাচ্চু নামে এক ব্যক্তি আখের আলীর বাড়ীতে অবস্থান করে বিভিন্ন প্রকার অপরাধ মুলক কর্মকান্ড করছিল। তাদের দুজনের জেলখানায় কারা ভোগের সময় পরিচয় এবং বন্ধুত্ব হয়। তারা দুইজন বিভিন্ন মামলায় বার বার জেল খাটার সুবাদে তাদের মধ্যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে উঠে। পরবর্তীতে আরো অনুসন্ধানের মাধ্যমে জানা যায় কালা মানিক ওরফে বাচ্চু মিয়া (৫৫) নন্দীগ্রাম উপজেলার ২নং (সদর) ইউনিয়নের কৈডালা গ্রামের মৃত রমেশের পুত্র।

তিনি আরো জানান, ঘটনার দিন গত ২১ আগষ্ট রাত অনুমান সাড়ে ৯টার সময় আখের আলী ও বাচ্চু মিয়ার অবস্থান তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে ঘটনাস্থল এলাকায় পাওয়া যায় এবং ঘটনার পর হতে বাচ্চু মিয়া পলাতক থাকায় ঘটনার সহিত বাচ্চু মিয়ার সরাসরি জড়িত থাকার বিষয়ে আমরা মোটামুটি ভাবে নিশ্চিত হই। তথ্য প্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহারের মাধ্যমে আমরা জানতে পারি যে কালা মানিক ওরফে বাচ্চু মিয়া পঞ্চগড় জেলার বোদা থানা এলাকায় অবস্থান করছে। এই তথ্যের ভিত্তিতে বোদা থানায় একটি অ্যাডভান্স টিম এক সপ্তাহের জন্য পাঠানো হয়, যারা অনুসন্ধান করে জানতে পারে দীর্ঘ ১০ দিন কালা মানিক ওরফে বাচ্চু মিয়া পঞ্চগড় জেলার বোদা থানায় অবস্থান করছিল।

পরবর্তীতে নন্দীগ্রাম থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আশরাফুল আলমের নেতৃত্বে আরো একটি টিম পঞ্চগড় জেলার বোদা থানা এলাকায় রওনা হয়ে দুই টিম একত্রিত হয়ে বোদা থানা এলাকায় প্রত্যন্ত অঞ্চলে অঞ্চলে অভিযান করে গ্রামের প্রায় ৭/৮টি পরিবারকে নজর বন্দির মাধ্যমে নিশ্চিত হওয়া যায় যে, কালা মানিক ওরফে বাচ্চু মিয়া বিগত ১০ দিন ধরে পঞ্চগড় বোদা থানার ভারতীয় সিমান্ত এলাকায় অবস্থান করার পরে বর্তমানে তিনি খাগড়াছড়ি জেলায় অবস্থান করছে বলে জানতে পারি। পরবর্তীতে নন্দীগ্রাম থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ আশরাফুল আলমের নেতৃত্বে একটি টিম খাগড়াছড়ি দাতকুপিয়া গ্রামে অভিযান পরিচালনা করে প্রায় ২৭ কিঃমিঃ দুরে কালা পাহাড় নামক টিলায় থেকে গত ১২ সেপ্টেম্বর ভোর বেলায় তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত বাচ্চু মিয়াকে নন্দীগ্রাম থানায় নিয়ে তার দেওয়া তথ্য মতে হত্যার ঘটনাস্থলে গিয়ে হত্যার কাজে ব্যবহৃত একটি মাংস কাটা চাপাতি এবং একটি লোহার রড উদ্ধার করা হয়। আসামী বাচ্চু মিয়া বিজ্ঞ আদালতে ফৌজদারী কার্যবিধির ১৬৪ ধারা মোতাবেক দোষ স্বীকারোক্তি মুলক জবানবন্দী প্রদান করেছে।


Check Also

বগুড়ায় হেরোইন জুয়া ও মাদক মামলায় ১০ জন গ্রেফতার

নন্দীগ্রাম (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার নন্দীগ্রামে জুয়া, মাদক ও পরোয়ানামূলে ১০ জনকে গ্রেফতার করেছে থানা …

Leave a Reply

Your email address will not be published.